১৪২২ সালের মেনু

সকল বন্ধুকে জানাচ্ছি সুভসন্ধ্যা।
আজ এই সুভসন্ধ্যায় আপনাদের সবার জন্য বর্ষ শুরুর একটি নতুন মেনু উপহার নিয়ে এসেছিঃ
সকালে নিদ্রা ভঙ্গের পর প্রাথমিক কাজকর্ম সেরে নিশ্চয়ই নাশতার টেবিলে বা মাদুরে এসে বসবেন! এতদিন অনেক
মজার খাবার যেমন ইলিশ ভাজা, চিংড়ির ভর্তা সাথে কাচা আমের চাটনি দিয়ে পান্তা খেয়ে বছরটি শুরু করেছেন। তাই না? আজ এমন এক মজার মেনু দিচ্ছি যা জেনে আশা করি সবার মুখে জল চলে আসবে। এই জন্যেই সার্বিক প্রস্তুতি নেয়ার সুবিধার্থে আগেই মজার রেসিপিটা জানিয়ে দিলাম। দয়া করে আমাকে কেউ ভুল বুঝবেন না!
তাহলে জেনে নিন, দরকার হলে একটা কপি প্রিন্ট করে বাড়ির গিন্নকে আগেই দিয়ে দিন আর সাথে একথা বলতে ভুলবেন না যে কাল সকালেই এই উপাদেয় স্বাস্থ্য রক্ষাকারি নাশতা দিয়ে বছরের শুরু করতে চাচ্ছেন! যা খেলে সারা বছর রক্ত বিশুদ্ধ থাকবে, মন চাঙ্গা থাকবে এবং যথারিতি বছর ব্যাপি শরীর সুস্থ্য থাকবে।
রান্নার রেসিপি না জানা থাকলে সাহাদত উদরাজি ভাইকে এখনই ফোন করে রেসিপি জেনে নিতে পারেন। এমন সুপরামর্শ দেয়ার জন্য আমাকে ধন্যবাদ না দিলেও আমি মাইন্ড করব না!!!!!!!

এবার মেনু জেনে নিন, মনে রাখার সমস্যা থাকলে এর একটা কপি প্রিন্ট করে এক্ষ্নই গিন্নীর হাতে ধরিয়ে দিন!
১। এক বাটি করল্লার সুপ
২। পিয়াজ কাচামরিচ সহ করল্লার ভর্তা
৩। করল্লা ভাজি
৪। করল্লার কাটলেট
৫। করল্লা আর কাকচি/বাতাসি কিংবা টেংরা মাছের চচ্চরি
৬। করল্লা আর ইলিশ/চিংরি মাছের ঝোল বা ভূনা
৭। কিমার পুর দেয়া করল্লার দোলমা
৮।ভেজিটেবল রাইস (শুধুমাত্র করল্লা সহযোগে)
সবার পরে একটু বগুরার দৈ। (এজন্যে ভাবতে হবে না এই দৈ আমাদের প্রিয় বন্ধু মুরুব্বীসরবরাহ করবেন)।

এত কিছু থাকতে করল্লাবর্গ দিয়ে কেন এই মেনু তৈরী করেছি নিশ্চয় জানতে ইচ্ছে করছে, তাইনা? দেখুন করল্লার কত গুন!!
০ রক্তের চর্বি তথা ট্রাইগিস্নসারাইড কমায় কিন্তু ভাল কলেস্টেরল এইচডিএল বাড়ায়।
০ রক্তচাপ কমায়।
০ ক্রিমিনাশক।
০ ভাইরাস নাশক-হিপাটাইটিস এ, হারপিস ভাইরাস, ফ্লু, ইত্যাদির বিরুদ্ধে কার্যকর।
০ ক্যান্সাররোধী লিভার ক্যান্সার, লিউকেমিয়া, মেলানোমা ইত্যাদি প্রতিরোধ করে।
০ ল্যাক্সেটিভ পায়খানাকে নরম রাখে, কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর করে।
০ জীবাণুনাশী-বিশেষ করে ই কোলাই নামক জীবাণুর বিরুদ্ধে কার্যকর।
মেনুটা কেমন লাগল আশা করি জানাতে আলসেমি করবেন না।

No comments:

Post a Comment

Follow by Email

Back to Top